বুধবার ১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

সারিয়াকান্দির হাট-বাজারে উঠতে শুরু করেছে নতুন পাট; দাম ভালো, ফলনে বিপর্যয় হাসি নেই চাষীদের মুখে 

সারিয়াকান্দি (বগুড়া) প্রতিনিধি   বুধবার, ২০ জুলাই ২০২২
90 বার পঠিত
সারিয়াকান্দির হাট-বাজারে উঠতে শুরু করেছে নতুন পাট; দাম ভালো, ফলনে বিপর্যয় হাসি নেই চাষীদের মুখে 

বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে হাটে-বাজারে নতুন পাট উঠতে শুরু করেছে। তবে সরবরাহ অনেক কম। কিন্তু এবার দাম ভালো থাকার পরেও পাট চাষীদের মুখে হাসি নেই।

স্থানীয় পাট চাষী ও উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, বগুড়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাটের চাষ হয়ে থাকে সারিয়াকান্দি উপজেলায়। এ উপজেলার বীল এলাকার পাশাপাশি চর এলাকার চাষীরা চরের উর্বর জমিতে ব্যাপকহারে পাটের আবাদ করে থাকেন। এ বছরও চাষ করেছেন প্রায় ৭ হাজার ১০ হেক্টর জমি। বীল এলাকার চাষীরা উচ্চ ফলনশীল ইরি-বোরো ধান কাটার পর পাট চাষ করেছেন এবার। জাত পাট, তোষা ছাড়াও ও-৭২, ও-৯৮, ও-৯৭, ও-৫২৪, রবি, জেআর-৯ ইত্যাদি জাতের পাট চাষ করেছেন চাষীরা। বপনের পরপরই পাট গাছগুলো তরতর করে বেড়ে উঠছিলো। তবে গত মাসে পাহাড়ী ঢলের বন্যার পানি পাটের জমিতে প্রবেশ করে।


কৃষি কর্মকর্তারা জানান, বন্যার পানিতে আক্রান্ত হওয়ায় প্রায় ৬’শ ২০ হেক্টর জমি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ফলে এ পরিমাণ জমির পাট পুরোপুরি নষ্ট এবং আংশিক জমির পাট ক্ষতিগ্রস্থ হয়। টাকার অংকে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১০ কোটি ২০ লক্ষ টাকা। এরই মধ্যে চাষীরা জমি থেকে পুরোদমে পাট কাটা-মাড়াই, ধোঁয়া-শুকানো শুরু করে দিয়েছেন। প্রতি বিঘা জমি থেকে ৯ থেকে ১০ মণ পাট উৎপাদন হওয়ার কথা। সেখানে চাষীরা পাচ্ছেন ৫ থেকে ৬ মণ করে সোনালী আঁশ পাট। এতে ক্ষতির মুখে পরেছেন পাট চাষীরা।


সদর ইউনিয়নের বাটিয়া চরের মোখলেছার রহমান বলেন, আমি এবার ১০ বিঘা চরের জমিতে পাটের আবাদ করেছিলাম। প্রথমে ভালই হয়েছিলো পাটের গাছ। কিন্তু গত মাসে বন্যায় সে আশা ধুলোয় মিশে গেছে। পাট জমিতে আছে ঠিকই, কিন্তু ২-৩ ফুট পরিমান পাট গাছের গোড়ায় শিকর গজিয়েছে। আমি এরই মধ্যে ৮ বিঘা জমি থেকে এ ধরনের পাট কর্তন করেছি। তাতে বিঘাপ্রতি ফলন পাচ্ছি ৫ থেকে ৬ মণের মত। ফলে পাট চাষে আমি এবার বড় রকমের ধরা খেয়েছি।

উপজেলা কৃষি অফিসার মো: আব্দুল হালিম বলেন, বাজারে নতুন পাট উঠতে শুরু করেছে। বর্তমানে প্রতি মণ পাট ২৬’শ থেকে ২৮’শ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দাম বেশ ভালো কিন্তু ফলন কম হওয়ায় চাষীরা সুবিধে করতে পারছেন না পাট চাষীরা। তবে দাম ভালো থাকলে ক্ষতি পুষিয়ে যাবে বলে আশা করা যায়।


Facebook Comments Box

Posted ১০:১১ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ২০ জুলাই ২০২২

Alokito Bogura। Online Newspaper |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  

সম্পাদক ও প্রকাশক:

এম.টি.আই স্বপন মাহমুদ

বার্তা সম্পাদক: এম.এ রাশেদ

অস্থায়ী অফিস:

তালুকদার শপিং সেন্টার (৩য় তলা),

নবাববাড়ি রোড, বগুড়া-৫৮০০।

বার্তাকক্ষ যোগাযোগ:

মুঠোফোন: ০১৭৫০ ৯১১ ৮৪৫

ইমেইল: alokitobogura@gmail.com

বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এসোসিয়েশন কর্তৃক নিবন্ধিত।
তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিধি মোতাবেক নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।
error: Content is protected !!