সোমবার ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

বগুড়ার আদমদীঘিতে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের ভুয়া পরিচয়ে সরকারি স্কুলের শিক্ষক

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি   সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১
117 বার পঠিত

বগুড়ার আদমদীঘিতে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের ভুয়া পরিচয়ে প্রায় ১৪ বছর যাবত সরকারি স্কুলের শিক্ষকতা করছেন বলে মাহবুবুল হক নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। তিনি বর্তমানে চাপাইনবাবগঞ্জের হরিমোহন সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সমাজ বিজ্ঞান বিভাগে চাকুরি করছেন। অভিযুক্ত মাহবুবুল হক-এর বাড়ি আদমদীঘি উপজেলার ছাতিয়ানগ্রাম ইউনিয়নের বাগবাড়ি গ্রামে। তার পিতার নাম মৃত জসিম উদ্দীন।

প্রাপ্ততথ্যে জানা যায়, আদমদীঘি উপজেলার ছাতিয়ানগ্রাম ইউনিয়নের বাগবাড়ি গ্রামে জসিম উদ্দীন মন্ডল নামের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জসিম উদ্দীন (কৃষক) নামের দুই ব্যক্তি রয়েছে। তাদের মধ্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দীন মন্ডলের ৪ ছেলে ১ মেয়ে সন্তান রয়েছে। তারা হলেন আনিছুর রহমান, মনছুর রহমান, মনজুরুল ইসলাম, মনির হোসেন ও মুনমুন আক্তার।


একই গ্রামের অপর মৃত জসিম উদ্দীন (কৃষক) এর সন্তান ৩জন। এর মধ্যে মাহবুবুল হক নামের এক ছেলে বীর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দীনের সন্তান সেজে ভুয়া পরিচয়ে সনদপত্র ব্যবহার করে ২০০৭ সালে ৬ জানুয়রি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক হিসাবে চাকুরি গ্রহন করেন। সে বর্তমানে চাপাইনবাবগঞ্জের হরিমোহন সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সমাজ বিজ্ঞান বিভাগে কর্মরত রয়েছেন।

এদিকে বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসাবে মাহবুবুল হকের দাখিলকৃত সনদপত্রটি প্রকৃত নয় তা জাল করে চাকুরি গ্রহন করা হয়েছে মর্ম্মে উপ-পরিচালক মাউশি রাজশাহি অঞ্চলের নিকট লিখিত অভিযোগ করা হলে তার তদন্তের জন্য চাপাইনবাবগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসারকে নির্দেশ প্রদাণ করেন।


সেই সুত্রে চাপাইনবাবগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসার মুক্তিযোদ্ধা সনদ যাচাই ও ওয়ারিশগনের তথ্য প্রদান করার জন্য আদমদীঘি মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের নিকট পত্র প্রদাণ করেন। গত ২৮ ফেব্রুয়ারি রোববার দুপুরে আদমদীঘিতে তদন্ত অনুষ্ঠিত হলে ঘটনাটি জানাজানি হলে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।

তদন্তে উঠে আসে মাহবুবুল হক বীর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দীন মন্ডলের সন্তান নয়। তার পিতার নামের সাথে বীর মুক্তিযোদ্ধার নামের মিল থাকায় ১৪ বছর আগে ভুয়া সন্তান সেজে চাকুরি গ্রহণ করেন।


বীর মুক্তিযোদ্দা জসিম উদ্দীন মন্ডলের মেঝো ছেলে মনছুর রহমান জানান, তার মাহবুবুল হক নামের কোন ভাই নেই। সে আমার পিতার নামের সনদপত্র ব্যবহার করে ভুয়া সন্তান সেজে চাকুরি গ্রহন করে এখনও চাকুরিতে রয়েছে।

আদমদীঘি মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার আব্দুল হামিদ জানান, মাহবুবুল হক মুক্তিযোদ্ধার ভুয়া সন্তান সেজে চাকুরি গ্রহন সঠিক। গ্রামবাসিরা জানান, একই গ্রামে বীর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দীন মন্ডলের নামের সাথে অভিযুক্ত মাহবুবুল হকের পিতার নামও জসিম উদ্দীন হওয়ায় সে বীর মুক্তিযোদ্ধার সনদপত্র ব্যবহার করে ভুয়া সন্তান সেজে চাকুরি গ্রহন করেছেন।

শিক্ষক মাহবুবুল হকের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান এবং ফোনে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান।

Facebook Comments Box

Posted ৮:৫৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১

Alokito Bogura। সত্য প্রকাশই আমাদের অঙ্গীকার |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  

সম্পাদক ও প্রকাশক:

এম.টি.আই স্বপন মাহমুদ

বার্তা সম্পাদক: এম.এ রাশেদ

বার্তাকক্ষ যোগাযোগ:

০১৭ ৫০ ৯১ ১৮ ৪৫

ইমেইল: alokitobogura@gmail.com

বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এসোসিয়েশন কর্তৃক নিবন্ধিত।। তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিধি মোতাবেক নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।
''আলোকিত বগুড়া'' সম্পাদক ও প্রকাশক কর্তৃক বগুড়া থেকে প্রকাশিত।
error: Content is protected !!