রবিবার ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

গাবতলীতে মুক্তিপন না পেয়ে খুন হলো অপহৃত শিশু হানজালাল

গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধি   শুক্রবার, ২২ জানুয়ারি ২০২১
47 বার পঠিত
গাবতলীতে মুক্তিপন না পেয়ে খুন হলো অপহৃত শিশু হানজালাল

বগুড়ার গাবতলীতে মুক্তিপণ না পেয়ে অবশেষে ৩৮দিন পর অপহৃত ৬বছরের এক শিশুকে হত্যা করলো অপহরনকারীরা। এরপর অপহরণকারীরা নিজেরাই ফোন করে মরদেহের সন্ধান দিলো পরিবারকে। অপহরণকারীদের ফোনের সূত্র ধরেই গত বৃহস্পতিবার রাতে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তবে শিশুকে উদ্ধারে পুলিশের দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগ রয়েছে বলে দাবী করেছেন এলাকার সচেতন মহল। অপহৃত শিশু হানজালাল (৬) গাবতলীর রামেশ্বরপুর ইউনিয়নের নিশুপাড়া গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী পিন্টু প্রামানিকের ছেলে। এ ঘটনায় নিহত শিশুর বাবা পিন্টু প্রামানিক বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

জানা গেছে, গত ১৩ডিসেম্বর বাড়ির পাশে খেলতে গিয়ে শিশু হানজেলাল অপহৃত হয়। ঘটনার রাতেই এ বিষয়ে নিয়ে গাবতলী থানায় জিডি করা হয়। ছেলে অপহরণের খবর পেয়ে দুদিন পর বাবা পিন্টু প্রামানিক মালয়েশিয়া থেকে দেশে ফিরেন। এরপর স্থানীয় করতোয়া পত্রিকাতেও ছেলের সন্ধান চেয়ে নিখোঁজ বিজ্ঞাপন দেন ওই শিশুর মা তাছলিমা বেগম।

alokitobogura.com

শিশুটির বাবা জানান, অপহরনাকারীরা তাছলিমা বেগমের মোবাইলে ফোন করে প্রথমে ৫ লাখ ও পরে ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে আসছিল। টাকা না দিলে ছেলেকে হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেয়। শিশুটির বাবা-মা অপহরণকারীর মোবাইল নম্বর নিয়ে থানার এস আই হাই এর কাছে ধর্না দিতে থাকেন। কিন্তু গত ১ মাস ৮দিনেও শিশুটি উদ্ধার কিংবা অপহরণকারীকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি বলে তাদের অভিযোগ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় যে নম্বর থেকে মুক্তিপণ চাওয়া হয়েছিল সেই একই নম্বর থেকে শিশুটির মাকে ফোন করে টাকা না পাওয়ায় তার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে বলে জানানো হয়। সেই সাথে তাদের বাড়ির পাশের পুকুরে মরদেহ আছে বলেও জানায় অপহরণকারীরা। পরে পুকুর থেকে বস্তাবন্দি পলিথিনে মোড়ানো এবং ইট বেঁধে পানিতে ডুবে রাখা মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

শিশুটির বাবা পিন্টু প্রামানিক ও মা তাসলিমা বেগম দাবি করেন, পুলিশের অবহেলা ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের অভাবে তার শিশুর প্রাণ নিয়েছে অপহরনকারীরা। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে ছুটে যান সহকারী পুলিশ সুপার (গাবতলী সার্কেল) সাবিনা ইয়াসমীন, মডেল থানার ওসি মোঃ নুরুজ্জামান, তদন্ত ওসি আনোয়ার হোসেনসহ সঙ্গীয় ফোর্স। এদিকে শুক্রবার বিকেলে ঘটনাস্থলে যান জেলা পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূইয়া।

এ ব্যাপারে মডেল থানার ওসি মোঃ নুরুজ্জামান আলোকিত বগুড়া’র সাংবাদিককে জানান, লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। অতি দ্রুত অপহরণকারীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে। থানার ওসি এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, হানজালাল এর মা’য়ের বাদীত্বে করা সাধারণ ডায়েরীর তদন্তের ভার দেয়া হয়েছিলো এস.আই আব্দুল হাইকে।

এ ব্যাপারে থানার এস আই হাই বলেন, শিশুটির মা একটি নিখোঁজ ডায়েরী করেছিলেন। আমি অনেক চেষ্টা করেছি শিশুটিকে খুঁজে বের করতে। তিনি এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, মুক্তিপন চাওয়ার বিষয়টি আমাকে জানানো হয়নি।

Facebook Comments

Posted ২:০৫ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ২২ জানুয়ারি ২০২১

Alokito Bogura। আলোকিত বগুড়া |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  

সম্পাদক:

এম.টি.আই স্বপন মাহমুদ

প্রকাশক: তৃষা মাহমুদ

বার্তা সম্পাদক: এম.এ রাশেদ

বার্তাকক্ষ যোগাযোগ:

০১৭৫০৯১১৮৪৫, ০১৭৩৮৬৪৫৮৬০

ইমেইল: alokitobogura@gmail.com

বিজ্ঞাপন: ০১৬১০ ৯১১৮৪৫

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এর তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিধি মোতাবেক নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।
''আলোকিত বগুড়া'' সম্পাদক ও প্রকাশক কর্তৃক বগুড়া থেকে প্রকাশিত।
error: Content is protected !!